প্রশ্ন :

আমার স্বামী পরহেযগার ও ইনছাফকারী। সার্বিক সামর্থ্য থাকা সত্ত্বেও আমার বাধাতেই তিনি দ্বিতীয় বিবাহ করেননি। এভাবে কেবল ঈর্ষা ও ভালোবাসার কারণে তাকে বিবাহে বাধা দেওয়ার কারণে আমি গোনাহগার হব কি?

উত্তর :

সক্ষম স্বামীকে দ্বিতীয় বিবাহে বাধা দেওয়া জায়েয নয়। কারণ এটি শরী‘আতে বৈধ। আল্লাহ বলেন, ‘আর তোমরা মেয়েদের মধ্য থেকে যাদের ভাল মনে কর দুই, তিন বা চারটি পর্যন্ত বিয়ে করতে পার (নিসা ৪/০৩)।

উক্ত আয়াতের ব্যাখ্যায় উছায়মীন বলেন, কোন নারীর জন্য বৈধ নয় যে, সে তার স্বামীকে দ্বিতীয় বিবাহে বাধা দিবে। কারণ একাধিক বিয়ে করা স্বামীর অধিকার (ফাতাওয়া নূরুন আলাদ-দারব ১৯/০২)।

শায়খ বিন বায বলেন, একাধিক বিবাহ আল্লাহর নৈকট্য লাভ ও উম্মতের সংখ্যাধিক্যের মাধ্যম এবং সার্বিক বিশৃংখলা ও ব্যভিচার থেকে বাঁচার উপায়। কারণ নারীরা কখনো অসুস্থ হয়; হায়েয, নিফাস বা গর্ভকালীন অবস্থায় বিপদগ্রস্ত থাকে। এসময় একাধিক স্ত্রী থাকলে একজন পুরুষ তার চাহিদা মিটাতে পারে এবং অনাকাংখিত পাপ থেকে সহজে বাঁচতে পারে (বিন বায, ফাতাওয়াল জামি‘ইল কাবীর)।

তাছাড়া সমাজে এমন অসংখ্য তালাকপ্রাপ্তা, বিধবা, অসহায় মহিলা রয়েছে, যারা নিরাপত্তাহীন কিংবা আশ্রয়হীন অবস্থায় দিনাতিপাত করছে। তাদের দায়িত্ব নেয়ার মত কেউ নেই। এমতাবস্থায় সুযোগ ও সামর্থ্য থাকলে পুরুষদের একাধিক বিবাহে উৎসাহিত করা উচিৎ। যাতে সমাজের পরিবেশ সুন্দর হয় এবং বিবাহ বহির্ভূত অপকর্ম না ঘটে। সুতরাং স্ত্রীর জন্য কর্তব্য হবে স্বামীকে একাধিক বিবাহে বাধা না দেওয়া এবং নেকীর কাজে তাকে সহযোগিতা করা।

নীড় | অন্যান্য উত্তরইসলামিক বই সমূহ | ফেসবুক .

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *