উত্তর

যে ব্যক্তি সাহাবায়ে কিরাম, তাদের অনুগামী তাবেঈন, তাঁদের অনুগামী তাবা-তাবেঈন ও দীনের ইমামগণের অনুসরণ করে সহীহ হাদীসের ফায়সালাকে মাথা পেতে গ্রহণ করে, তাদের বুঝে কুরআন ও হাদীস বোঝে এবং সেই অনুযায়ী আমল করে, বিশ্বাস করে, ইবাদত করে, আচরণ করে, দাওয়াত ও তরবিয়ত দেয়, সেই হল সালাফী। সেই হল সালাফী মানহাজ ও আদর্শের অনুসারী।

লক্ষণীয়

ভালোভাবে লক্ষণীয় যে, এ ব্যাপারে নির্দিষ্ট করে কেবল একজনের অন্ধানুকরণ করে না, বরং উলামার অনুসরণ করে এবং দলীলপুষ্ট ও যুক্তিযুক্ত মতটিকে গ্রহণ করে। তাহলে সালাফী জামাআতের প্রতিষ্ঠাতা কে? সালাফিয়াত কোন মতবাদ নয়, সংগঠিত দল নয়, বিচ্ছিন্ন ফির্কা নয়। বরং তা হল ইসলামের মূল স্রোতধারা। মুসলিমদের সঠিক জীবন-পদ্ধতি। সুতরাং সঠিক ইসলামের এ জামাআতের প্রতিষ্ঠাতা কোন মানুষ নয়। অথবা বলা যায়, এর প্রতিষ্ঠাতা হলেন স্বয়ং রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)। অবশ্য যুগে যুগে তার সংস্কারক আছে।

তথ্যসূত্র

  • বইঃ সালাফী ও সালাফিয়াত পরিচিতি
  • লেখকঃ আবদুল হামীদ ফাইযী
  • সূত্রঃ বাংলা হাদীস

উপসংহার (টিকা)

সর্বপোরি আলেমদের ফতুয়া যদি এমন হয় যে পুর্বের আলেমদের বিপক্ষে যাচ্ছে সে ক্ষেত্রে আমাদের করণীয় কি হবে?

অথবা এমন কোন ফতুয়া প্রদান করেছেন যা সাধারণ মানুষ ও বুঝতে পারছে এটা ঠিক নয়; এরপরেও কি আমরা ঐ আলেমের অনুসরণ করব? বা তার পক্ষে সাফাই গাইব এই বলে যে যেহেতু শায়েখ বলেছেন অবশ্যই কোন কারণ আছে?

উস্তাদ আবদুল হামিদ ফাইযী মাদানী এটাই বলেছেন এমনটা য করলো সে এক শায়েখ বা তার দলের অনুসরণ করলো সে সালাফীর অনুসরণ করেনি।

আল্লাহ আমাদের সঠিক বুঝ দান করুন; আমিন ইয়া রব্ব।

আল্লাহু আলাম।

সোশ্যাল মিডিয়া

salafibd banner
Facbook icon
Youtube icon

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *